এইচএসসি উচ্চতর গণিত সাজেশন ২য় পত্র-২০১৬ (ঢাকা বোর্ড) অক্ষরপত্র প্রকশনীর বই এর আলোকে।

খুব শীঘ্রই আসছে।

Hit counter: 22

HSC Math Suggestion

উচ্চতর গণিত সাজেশন ২০১৬ (ঢাকা বোর্ড)-২য় পত্র

উচ্চতর গণিত সাজেশন ২০১৬ (ঢাকা বোর্ড)- ১ম পত্র

 

♦ স্কুল ইন্সপেক্টর প্রচণ্ড বিরক্ত হয়ে প্রধান শিক্ষকের রুমে এসে ঢুকলেন। প্রধান শিক্ষককে বললেন তিনি, ‘সকাল থেকে আপনার স্কুলের বেশ কয়েকজন ছাত্রছাত্রীর সঙ্গে কথা বললাম। এদের অবস্থা তো আমার কাছে খুবই করুণ বলে মনে হচ্ছে।’ ‘কেন স্যার, এ কথা কেন বলছেন?’ প্রধান শিক্ষক ব্যতিব্যস্ত হয়ে জিজ্ঞেস করলেন। ‘আরে ভাই, যেটাই জিজ্ঞেস করি উল্টাপাল্টা উত্তর দেয়। একটা প্রশ্নেরও সঠিক উত্তর পেলাম না। সব দেখেশুনে মনে হচ্ছে, আপনাদের স্কুলে কোনো পড়ালেখা হয় না।’ প্রধান শিক্ষক বললেন, ‘এ রকম তো হওয়ার কথা নয়। হতে পারে ঘটনাচক্রে দু-একটা খারাপ ছাত্রছাত্রী আপনার সামনে পড়ে গেছে।’ ‘উঁহু’, মাথা নাড়লেন ইন্সপেক্টর। ‘দেখুন, আপনাকে এখনই প্রমাণ করে দিচ্ছি। যেকোনো একজন ছাত্রকে ডেকে পাঠান তো!’ প্রধান শিক্ষক পিয়ন দিয়ে একজন ছাত্র ডেকে পাঠালেন। ছাত্রটি রুমে ঢুকলে ইন্সপেক্টর বললেন, ‘আচ্ছা বাবা, পাশের রুমে গিয়ে দেখে আসো তো আমি ওখানে আছি কি না।’ ছেলেটি কোনো কথা না বলে পাশের রুমে চলে গেল। ইন্সপেক্টর এবার প্রধান শিক্ষকের দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘দেখলেন তো, কত বড় স্টুপিড।’ হেডমাস্টার মাথা চুলকে বললেন, ‘তাই তো স্যার, একটা ফোন করেই তো জেনে নিতে পারত!’ ♦ বুড়ো জনসন সাহেবের দামি হাতঘড়িটা হঠাৎ করেই লাপাত্তা হয়ে গেল। সারা বাড়ি খুঁজে তন্নতন্ন করে ফেললেন তিনি, কিন্তু কোথাও খুঁজে পেলেন না। মনটা খুবই খারাপ হয়ে গেল তাঁর। ঘড়ি যতই দামি হোক, ওটার জন্য থানা পুলিশ করার ইচ্ছা ছিল না, তবু স্ত্রীর পরামর্শে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করতে হলো। স্থানীয় থানার দারোগা সাহেব একগাল হেসে আশ্বাস দিলেন, ‘চিন্তা করবেন না, একটা কিনারা আমরা করেই ফেলব।’ মোটামুটি আশ্বস্ত হয়ে বাড়ি ফিরে এলেন জনসন সাহেব। সেদিন সন্ধ্যার কথা, ঘর গোছাতে গিয়ে হঠাৎ চেঁচিয়ে উঠলেন মিসেস জনসন, ‘জনসন তোমার ঘড়ি পাওয়া গেছে।’ দেখা গেল, বুক শেলফের ঠিক পেছনে মেঝের ওপর পড়ে আছে জনসন সাহেবের হাতঘড়িটা। খুবই খুশি হলেন জনসন সাহেব। স্ত্রীর পরামর্শে দ্রুত ওসি সাহেবের কাছে ফোন করলেন তিনি। ‘ভাই, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আমার ঘড়িটা আর খুঁজতে হবে না।’ ‘কেন খুঁজতে হবে না?’ ওসি সাহেবের গলায় বিস্ময়। ‘কারণ ঘড়িটা বাড়িতেই খুঁজে পেয়েছি আমরা।’ ‘তা বললে তো হবে না।’ ওপার থেকে ওসি সাহেবের গলা ভেসে এলো। ‘কারণ আপনার ঘড়িটা চুরি করার অপরাধে ছয়জনকে পাকড়াও করেছি আমরা। তার চেয়েও বড় কথা হচ্ছে, তাদের মধ্যে তিনজন এরই মধ্যে আপনার ঘড়ি চুরির কথা স্বীকারও করেছে! ...

View on Facebook

Hit Counter: 9